এই ব্লগটি সন্ধান করুন

লোড হচ্ছে...

রবিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০১০

Shayla aunty-k choder kotha(শায়লা আন্টিকে চোদার কথা)

ছোট মামীর মতো আরেকটা মহিলা আমার কলেজ বয়সে দেখেছি, পাশের বাসার শায়লা আন্টি। উনি ব্রা পরতেন না কখনো। শাড়ীটা কখনোই বুকে থাকতো না। ফলে আমার ফ্যান্টাসীতে আরো একজোড়া দুধ যোগ হলো। শায়লা আন্টির দুধগুলো প্রথমদিন দেখেই ঝাঁপিয়ে পড়তে ইচ্ছে হয়েছিল। উনি কিছুদিন ছোটমামীকে ভুলিয়ে রেখেছিলেন। ওই বাসার রুবীর মাও বুকে শাড়ী রাখতেন না, তবে রুবীর মার দুধগুলো ছোট ছিল অনেক। মাঝে মাঝে রুবীর মার দুধ নিয়েও হাত মেরেছি। সেই বাসার নীচ তলায় থাকতো তানভীরের মা। আরেক যৌবনবতী রমনী, বুকে শাড়ী রাখতেন না। আমি তিনতলা থেকে দেখতাম ব্লাউজের বড় ফাক দিয়ে উনার দুধের অর্ধেকটা দেখা যাচ্ছে। উনাকে নিয়েও কখনো কখনো হাত মেরেছি।

পানি আনার জন্য শায়লা আন্টির বাসায় যাতায়াত। ছুতা খুজতাম সবসময় পানি আনার। উদ্দেশ্য শায়লা আন্টির রূপ দর্শন। রূপ এবং যৌবন বিশেষ করে ওনার সুন্দর স্তন যুগল। মনে আছে উনি বিয়ের পরদিন সকালে বিছানায় বসে আছে, স্বামী বাইরে গেছে, অন্যন্য আন্টিরা গেছে কথা বলতে, ফাজিল এক আন্টি আমার সামনেই জিজ্ঞেস করে বসে রাতে কী কী হয়েছে। আমি তখন ষোল-সতের বছর বয়সের। নারী শরীরের প্রতি প্রচন্ড আগ্রহ। পত্রিকায় নূতন-সুচরিতার ব্লাউস পরা স্তন দেখেও দিনে দুবার হাত মারি। সেই আমি চোখের সামনে দেখলাম শায়লা আন্টি আলুথালু বেশে বসে আছে। সারারাতের ধকলের চিহ্ন পরিষ্কার। চেহারায় তৃপ্তির ছাপ। পালিয়ে বিয়ে করেছেন উনি। এখানে ছিল লুকানো বাসর। কিন্তু আমি যেটা বেশী খেয়াল করলাম সেটা হলো ওনার লাল শাড়ীটা কোলে পড়ে আছে। ব্লাউজের লো কাট ফাক দিয়ে ওনার আমসাইজ ফর্সা স্তন দুটোর অর্ধেকটা উঁকি দিচ্ছে। ওনার স্তনের সেই শূভ্র সৌন্দর্য আমার চোখে এখনো ভাসে। পরিপূর্ন যৌবন বললে ওনাকে আর ছোটমামীকে ভাসে। আমি চোখ ফেরাতে পারলাম না। জুলজুল করে তাকিয়ে রইলাম ওনার দুধের দিকে। এই দুধ দুটো সারারাত কামড়ে কামড়ে খেয়েছে আংকেল। আমার খুব হিংসা হতে লাগলো। ইশশ একবার যদি খেতে পারতাম। সেদিন বাসায় ফিরে হাত মেরেছি। কল্পনায় চুষেছি অনেকবার।
এরপর থেকে শায়লা আন্টি আমার খুব প্রিয় হয়ে গেল। সুযোগ পেলেই ঢু মারতাম ওনাদের রান্নাঘরে। উনি যখন বসে বসে তরকারী কাটতেন ওনার হাটুর চাপে একটা স্তন ব্লাউজের উপরের ফাক দিয়ে প্রায় অর্ধেক বের হয়ে আসতো। এটা আমার নিয়মিত দৃশ্য হয়ে গেল। তাছাড়া অনেক সময়ই ঘরে কাজ করার সময় উনি শাড়ী পড়তেননা। সায়া-ব্লাউজ পরেই কাজ সারতেন কেন যেন। তাছাড়া ওনার ব্রা বেশী ছিলনা বলে ঘরে ব্রা টা পরতেন না। ফলে খালি ব্লাউজের খোলসে ওনার সুন্দর স্তন দুটো যে কী দারুন সেক্সী লাগতো সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। উনি যখন আমাদের বাসায় আসতেন তখনো দেখতাম ওনার শাড়ী বুকে ঠিকমতো নাই। হয়তো একপাশে সরে একটা স্তন দেখা যাচ্ছে অথবা দুই স্তনের মাঝখানে পড়ে আছে। আমি জানিনা এটা ওনার ইচ্ছাকৃত ছিল কিনা। কিছু মেয়ে আছে যাদের গায়ে কাপড় থাকতে চায়না। ইনিও সেরকম হয়তো। কিন্তু আরেকটা কথা মনে হতো, ওনার যৌবন বোধহয় অপচয় হচ্ছে। ওনার শরীর দেখে মনে হয়, এই শরীর আরো আদর চায়, আরো সোহাগ চায়। একদিন আমি সেই সোহাগের সঙ্গী হলাম।

-তোমার সাথে একটু কথা আছে। বালতিটা রেখে আসো।
-আচ্ছা। বলেন কী কথা।
-তোমার বয়স কতো
-সতের হবে
-তোমাকে দেখে তো আরো কম লাগে, ১৪-১৫ মতো
-যাহ কী যে বলেন আন্টি
-সত্যি, আমি জানতাম না তোমার বয়স আমার কাছাকাছি
-আপনার কতো
-অ্যাই মেয়েদের বয়স জানতে নাই
-তবু বলেন
-আমার বিশ
-ও আচ্ছা
-তুমি কিন্তু যতটা ভদ্র দেখা যায় ততটা না
-কী বলেন
-তুমি চোরাচোখে মেয়েদের দিকে তাকাও
-আন্টি আপনি কী বলছেন
-জী, আমি সত্যি বলছি, এজন্যই আপনাকে ডেকেছি আজ
-মারবেন নাকি
-হ্যাঁ মারবোই, তোমার নামে নালিশ আছে
-কী নালিশ
-তুমি সবসময় আমার বুকের দিকে তাকিয়ে থাকো।
-ছি আন্টি আপনি মুরব্বী, আপনার দিকে তাকাবো কেন
-আহারে কত মুরব্বী মানে। মুরব্বীর শরীর চেটে চেটে খায়, আবার মুরব্বী মারায়। খবরদার মুরব্বী বলবা না, তাহলে তোমার বাসায় বলে দেব।
-না আন্টি প্লীজ,
-আচ্ছা বলবো না, যদি সত্য স্বীকার করো
-স্বীকার করলাম
-কী স্বীকার করলা
-না মানে
-কী মানে মানে করছো, পরিষ্কার করে বলো
-আসলেই তাকাই
-কেন তাকাও
-ভালো লাগে
-কী ভালো লাগে
-আপনাকে
-আমাকে না আমার শরীরটাকে
-সবকিছু
-সবকিছু কেমনে, তুমি কী আমার জামাই নাকি, ফাজলেমি করো, নাক টিপলে দুধ বেরোয় এখনো?
-সরি আন্টি, সবকিছু না
-তাহলে কোনটা
-বলবো?
-বলো
-আপনার সবচেয়ে সুন্দর আপনার এই দুটো (স্তনের দিকে আঙুল দিয়ে বললাম)
-ওরে বাবা, এ যে মস্ত সেয়ানা, একদিকে আন্টি ডাকে আবার আন্টি দুধের দিকে নজর দেয়।
-যা সত্যি তাই বললাম আন্টি
-হয়েছে আর আন্টি মারাতে হবে না। আন্টির ইজ্জত কিছুতো রাখোনি। খাই খাই দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকো সারাক্ষন। লজ্জা করে না?
-না করে না
-বলে কী বদমাশ ছেলে
-আপনি দেখাতে পারলে আমি তাকাতে পারবো না কেন
-কখন আমি দেখিয়ে রাখলাম
-কেন এখনো তো দেখাচ্ছেন?
-অ্যাই ছেমড়া। চোখের মাথা খাইছো? আমার শাড়ি, ব্লাউজ এগুলো চোখে লাগছে না। আমি তোমাকে বুক দেখিয়ে বেড়াই?
-না না আন্টি সেটা বলি নাই, মানে আপনার ব্লাউসের ভেতর থেকে বেরিয়ে আসা দুধগুলো দেখেই আমি…..
-দুধগুলো দেখে কী করো?
-না, এমনি
-এই শয়তান ছেলে এদিকে আসো
-জী
-শুধু তাকাতে ইচ্ছা করে, ধরতে ইচ্ছা করে না?
-করে তো, কিন্তু কী করে ধরি
-এখন ধরবা?
-হ্যাঁ
-আসো ধরো, টিপো, খাও, তোমার যা যা করতে ইচ্ছা করে করো। আমি এক ঘন্টা সময় দিলাম। তারপর আমি রান্না বসাবো।
আমি শায়লা আন্টির দুধ দুইটা খপ করে ধরলাম। তুলতুলে নরম, কিন্তু টাইট। ব্লাউজের বোতাম খুলে সরাসরি দুধে হাত দিলাম। ওম ওম নরম। টিপতে খুব আরাম লাগছে। বোটাটা খাড়া হয়ে তাকিয়ে আছে আমার দিকে। চুমু খেতে গিয়ে সামলাতে না পেরে পুরোটা মুখে পুরে চোষা শুরু করলাম। এই মজার চুষনি জীবনেও পাইনি। বৌয়েরটা এত চুষি তবু শায়লা আন্টির মতো মজা লাগে না। এত মজার দুধ ছিল ওনার গুলো। মুখের ভেতর রাবারের বল নিয়ে যেন খেলছি। চুষতে চুষতে আমার ধোনটা খাড়া আর গরম। আন্টি হাপাচ্ছে উত্তেজনায়। আমার মাথার চুল ধরে আমাকে বুকের সাথে চেপে ধরেছে। আমি ওনাকে ঠেলে বিছানায় নিয়ে ফেললাম। আজ না চুদে ছাড়বো না মাগীকে। না দিলে জোর করবো। আমি সিরিয়াস। বিছানার সাথে চেপে ধরে গায়ের উপর উঠলাম। এক হাতে আমার প্যান্ট খুলে ফেললাম, তখনো আমি জাঙ্গিয়া পরি না। ধোনটা লাল টানটান হয়ে আছে, যে কোন মুহুর্তে মাল বেরুবে এই অবস্থায়। আন্টি চুদতে দিতে রাজী আছে কি না জানি না, কিন্তু মৃদু বাধা দিচ্ছে চোদার কাজে। এই মৃদু বাধায় কাজ হবে না। আমি শালীকে বিছানায় চেপে ধরে শাড়ীটা রান পর্যন্ত তুলে ফেললাম। তারপর কোমরটা খপ করে নামিয়ে দিলাম। এর আগে কাউকে চুদিনি। কিন্তু ব্লু ফিল্মে দেখেছি কীভাবে চুদতে হয়। এখানে ইনি রাজী কি না বুঝতে পারছি না। তাই আন্দাজে ঠেলছি সোনা বরাবর। লিঙ্গের মধ্যে ঘন কেশের স্পর্শ পেলাম, কিন্তু ছিদ্র পেলাম না। হাত দিয়ে ছিদ্র খুজলাম, ভেজা ভেজা লাগলো। শায়লার মাল বেরুচ্ছে। আমার কোমড় ধৈর্য মানছে না। ঠাপ মারা শুরু করলো ছিদ্রের বাইরে। শায়লা গোঙাচ্ছে। আমি আবার মুখ দিলাম দুধে। চুষতে চুষতে ঠেলছি। কয়েক মিনিট পর চিরিক চিরক অনুভুতি হলো, মাল বেরিয়ে গেল তীব্র বেগে। ভরিয়ে দিল শায়লা আন্টির সোনার অঙ্গ, সোনার কেশগুচ্ছ। পরে দেখেছি শায়লা আন্টি কী ভয়ানক কামার্ত মহিলা। আমার ১৭ বছর বয়সী শরীর ও যৌবনকে চিবিয়ে খেয়েছে। সে আরেক গল্প।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন